Chapter 7- ভারতের সম্পদ Bharater Sompod Geography Bhugol Notes WBBSE Class 9

আপনি এখানে শিখবেন এই অধ্যায়ে এবং বিষয়ের ফাউন্ডেশন অংশটা, এই বিষয়টিকে সহজ-সরলভাবে পড়িয়েছেন বিশেষজ্ঞ শিক্ষক ভিডিও লেকচার এর মাধ্যমে এবং এই পুরো অধ্যায়কে চার ভাগে খন্ডিত করে আপনার জন্য তৈরি করা হয়েছে

  • প্রথম খন্ডে আপনি শিখবেন ফাউন্ডেশন অংশটা যেখানে অধ্যায়ের ব্যাপারে আপনাকে বোঝানো হয়েছে তার মানে definitions,basics  গুলো সহজভাবে.  এবং এটাকে আপনি বুঝতে পারবেন যেটা আপনাকে পরীক্ষার জন্য ক্রীপের করতে সাহায্য করবে
  • দ্বিতীয় মডিউলে আপনি শিখবেন MCQ মাল্টিপল চয়েস কোশ্চেন যেটা সাধারণত এক Marks’er আসে পরীক্ষায়
  • তৃতীয় মডিউলে আপনি শিখবেন শর্ট অ্যানসার এবং কোয়েশ্চেন, যেটা আপনার পরীক্ষার সাজেশন মধ্যে পড়ে এবং এটা 3-4 marks’er  প্রশ্ন আসে আপনার পরীক্ষা
  • চতুর্থ মডিউল আপনি শিখবেন লং আনসার এবং questions যেটা সাধারণত 5-6 marks er হয়

আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন যাতে কি আপনাকে আমরা সাহায্য করতে পারি

What Are Natural Resources? - WorldAtlas

সম্পদ কি হয় ?

অর্থনৈতিক ভূগোলে, সম্পদকে মানুষের প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে এমন একটি বস্তু বা পদার্থের উপযোগিতা এবং কার্যকরী ক্ষমতা হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। 

অধ্যাপক জিমারম্যান (E. W. Zimmermann, 1951) এর মতে সম্পদ বলতে কোনো বস্তু বা পদার্থকে বোঝায় না, কিন্তু বস্তু বা পদার্থের কার্যকরী ক্ষমতাকে বোঝায় যা নির্দিষ্ট লক্ষ্য পূরনের সাহায্যে মানুষের চাহিদা মেটায়। অর্থাৎ, সম্পদ হল বস্তুর বা পদার্থের কার্যকারিতা।

বসুন্ধরা সম্মেলন (রিও ডি জেনিরো, 1992) অনুসারে, জীবমন্ডলের সংরক্ষণের সাথে সাথে মানুষের চাহিদা মেটাতে সাহায্য করে এমন যেকোন জিনিসকে একটি সম্পদ হিসাবে বিবেচনা করা উচিত।

সম্পদের বিশেষত্ব: একটি বস্তু বা পদার্থের কিছু গুণাবলী থাকলে তবেই সেটি সম্পদ হিসাবে বিবেচিত হয়। যেমন – উপযোগিতা, দক্ষতা, সর্বজনীন চাহিদা, সীমিত সরবরাহ, গ্রহণযোগ্যতা, ক্ষয়িষ্ণুতা, পরিবেশগত বন্ধুত্ব, জীবমন্ডলের সংরক্ষণ ইত্যাদি 

সম্পদ সৃষ্টির প্রধান উপাদান: সম্পদের প্রকৃতি হল গতিশীল। মানুষ তার জ্ঞান, বুদ্ধি, বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে প্রকৃতি থেকে প্রাপ্ত বস্তু বা পদার্থের উপযোগিতা তৈরি করে এবং তাকে সম্পদে পরিণত করে। সম্পদ মূলত তিনটি উপাদান দ্বারা গঠিত হয়। যথা- প্রকৃতি, মানুষ এবং সংস্কৃতি।

সম্পদের প্রকারভেদ কি হয় ?

সম্পদকে অনেক দৃষ্টিকোণ থেকে একাধিক অংশে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়, তবে স্থায়িত্বের উপর ভিত্তি করে সম্পদের শ্রেণীবিভাগ বেশি প্রচলিত। স্থায়িত্বের ভিত্তিতে সম্পদকে দুটি ভাগে ভাগ করা যায়। যেমন- 

  • গচ্ছিত বা ক্ষয়িষ্ণু বা অপুনর্ভব সম্পদ: গচ্ছিত সম্পদ হল সেই সমস্ত সম্পদ যা প্রকৃতিতে সীমিত এবং একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে সঞ্চিত করা থাকে। ক্রমাগত ব্যবহারের ফলে এটি হ্রাস পাওয়ার কারণে একে ক্ষয়িষ্ণু সম্পদ বলে । এটি তৈরি করে পুনরায় প্রকৃতিতে ফিরিয়ে দেওয়া যায় না, তাই এটি অপুনর্ভব সম্পদ হিসাবে পরিচিত। এই ধরনের সম্পদের মধ্যে রয়েছে আকরিক, লোহা, কয়লা, খনিজ তেল ইত্যাদি।
  • প্রবাহমান বা অফুরন্ত বা পুনর্ভব সম্পদ: প্রকৃতির যে সকল সম্পদ যা সীমাহীন ও অসীম তাদেরকে প্রবাহমান বা অফুরন্ত সম্পদ বলে। ক্রমাগত ব্যবহারের ফলে এই সম্পদটি ক্ষণিকের জন্য ক্ষয়প্রাপ্ত হলেও প্রকৃতিতে এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পুনরুদ্ধার হয়, তাই একে পুনর্ভব সম্পদ বলা হয়। বনভূমির গাছ, জলের মাছ, সৌরশক্তি প্রভৃতি হল প্রবাহমান সম্পদ। 

How to Save Planet Earth | Discover Magazine

সম্পদের সংরক্ষণের পরিচয় বোঝাও 

প্রকৃতিতে সঞ্চয় করার জন্য সীমিত সংখ্যক সম্পদ রয়েছে। মানুষ অনিয়ন্ত্রিত এবং অবৈজ্ঞানিক ব্যবহারের ফলে এই সম্পদগুলি ক্রমাগত হ্রাস পাচ্ছে ।

ফলস্বরূপ, পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য সম্পদ সংরক্ষণের একটি অনন্য প্রয়োজন রয়েছে। সম্পদ সংরক্ষণ হল সম্পদের পরিমিত উৎপাদন, বৈজ্ঞানিক ব্যবহার এবং অপচয় প্রতিরোধের দ্বারা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সম্পদ সঞ্চয় করার প্রক্রিয়া।

সম্পদ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা  কি হয় ?

  • সঞ্চিত সম্পদের প্রাপ্যতা সংরক্ষণ
  • সম্পদকে দীর্ঘায়ু করা
  • পরিবেশগত দূষণ প্রতিরোধ করা 
  • সম্পদ সংকট থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করার জন্য সম্পদ সংরক্ষণের বিশেষ প্রয়োজন রয়েছে।

সম্পদ সংরক্ষণের উপায় কি হয় ?

  • সম্পদের অপচয় রোধ করে পরিমিত ব্যবহার
  • সম্পদের বৈজ্ঞানিক ব্যবহার
  • সম্পদের ব্যবহার হ্রাস
  • প্রতিস্থাপিত ব্যবহার বৃদ্ধি
  • সম্পদের পুনর্ব্যবহার
  • অপ্রচলিত শক্তি সম্পদের ব্যবহার বৃদ্ধি
  • কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত উৎকর্ষতা বৃদ্ধি
  • সম্পদ সংরক্ষণে সচেতনতা বৃদ্ধি ইত্যাদি উপায়ে সম্পদ সংরক্ষণ করা সম্ভব।

ভারতের খনিজ সম্পদ কি হয় ?

খনিজগুলি হল ভূগর্ভস্থ বা খনি থেকে নেওয়া পদার্থ যা নির্দিষ্ট রাসায়নিক যৌগ এবং পারমাণবিক গঠন সহ প্রায় একই ধরনের পরিবর্তিত উপাদান দিয়ে গঠিত।

খনিজ সম্পদের প্রকারভেদ: 

  1. ধাতব খনিজ– যেমন আকরিক লোহা, ম্যাঙ্গানিজ, বক্সাইট, তামা, সোনা ইত্যাদি।
  2. অধাতব খনিজ-যেমন অভ্র, চুনাপাথর, জিপসাম, গ্রাফাইট ইত্যাদি। 
  3. জ্বালানি খনিজ-যেমন কয়লা, খনিজ তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস ইত্যাদি।

আকরিক লোহা কি হয় ?

আকরিক লোহা হল একটি লৌহজাত ধাতব খনিজ পদার্থ । প্রধানত উচ্চ শ্রেণীর হেমাটাইট এবং ম্যাগনেটাইট জাতীয় আকরিক লোহা ভারতে পাওয়া যায়। 2012 সালের হিসাবে ভারত বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম লৌহ আকরিক উৎপাদনকারী দেশ।

  • আকরিক লোহার প্রকারভেদ: বর্তমান ধাতব লোহার পরিমাণ এবং গুণমানের উপর ভিত্তি করে লোহা আকরিককে চার প্রকারে ভাগ করা যায়। যেমন- ম্যাগনেটাইট, হেমাটাইট, লিমোনাইট, সিডেরাইট। 
  • আকরিক লোহার ব্যবহার ও গুরুত্ব: আকরিক লোহা সরাসরি ব্যবহার করা যায় না তাই খনিজ লোহাকে পরিশোধিত করে কাঁচা লোহার সাথে ম্যাঙ্গানিজ, ক্রোমিয়াম, টাংস্টেন, নিকেল প্রভৃতি খনিজ পদার্থ মিশ্রিত করে লৌহ- ইস্পাত তৈরী করা হয়। এই লোহা-ইস্পাত গার্হস্থ্য যন্ত্রপাতি, গৃহ নির্মাণ সামগ্রী, যানবাহনের উপকরণ, কৃষি যন্ত্রপাতি, শিল্প যন্ত্রপাতি এবং অস্ত্র তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। 
  • আকরিক লোহা আধুনিক যান্ত্রিক সভ্যতা এবং সমস্ত শিল্পের একটি অপরিহার্য উপাদান। সংস্কৃতি ও শিল্পে লৌহ আকরিকের ব্যবহার সম্প্রতি এতটাই বিস্তৃত, বৈচিত্র্যময় এবং সর্বজনীন হয়ে উঠেছে যে বর্তমান যুগকে “লৌহ যুগ” বা “ইস্পাত যুগ” বলে অভিহিত করা হয়।
  • ভারতের আকরিক লোহার আঞ্চলিক বন্টন : ভারতের প্রধান লৌহ আকরিক খনির অঞ্চলগুলি হল: ওড়িশা, ছত্রিশগড়, ঝাড়খন্ড, কর্ণাটক, গোয়া, মধ্যপ্রদেশ। তাছাড়া, মহারাষ্ট্রের রত্নাগিরি, চন্দ্রপুরা এবং সিন্ধুদূর্গ জেলা; অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুর, নেলোর, কুডাপ্পা এবং কুর্নুল জেলা; রাজস্থানের জয়পুর, আলোয়ার, ভিলওয়ারা জেলা প্রভৃতি এলাকায় আকরিক লোহা উত্তোলন করা হয়।
  • ভারতের আকরিক লোহার সঞ্চয় : ভারতে এখন 1204 মিলিয়ন টন লোহা আকরিক মজুদ রয়েছে। উড়িষ্যা রাজ্যে 6.95 হাজার টন মজুদ রয়েছে, যেখানে ঝাড়খণ্ড রাজ্যে 24.29 হাজার টন মজুদ রয়েছে। ( সূত্র-Indian Bureau of Mines,2013)
  • আকরিক লোহার বাণিজ্য : ভারত আকরিক লোহা রপ্তানিতে বিশ্বে তৃতীয় স্থান অধিকার করে । ভারত তার মোট রপ্তানিযোগ্য লৌহ আকরিকের 58 শতাংশ চীনে রপ্তানি করে। লোহা আকরিক যুগোস্লাভিয়া, হাঙ্গেরি, ইতালি, জার্মানি, পোল্যান্ড এবং অন্যান্য দেশেও রপ্তানি করা হয়। ভারত 2011-12 সালে আনুমানিক 471.53 লক্ষ টন আকরিক লোহা রপ্তানি করেছিল। (সূত্র-Indian Minerals Yearbook 2012)

How is coal formed? - BBC Science Focus Magazine

কয়লা:

কয়লা ভারতের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য জ্বালানি খনিজ। ভারতে উত্তোলিত কয়লার বেশিরভাগই বিটুমিনাস শ্রেণির। 2012 সালের তথ্য অনুসারে, ভারত কয়লা উত্তোলনে বিশ্বে তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

কয়লার রকমভেদ:

কার্বনের পরিমাণের ভিত্তিতে কয়লাকে চার প্রকারে ভাগ করা যায়-

  • অ্যানথ্রাসাইট
  • বিটুমিনাস
  • লিগনাইট
  • পিট

কয়লা ব্যবহার: বর্তমান সময়ে কয়লার ব্যবহার এতটাই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় যে এটিকে “কালো হিরে” হিসাবে উল্লেখ করা হয়।

কয়লা প্রাথমিকভাবে ব্যবহার করা হয়- 

  1. তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য
  2. লোহা ও ইস্পাত শিল্পে লোহা গলানোর জন্য ব্যবহৃত কোক কয়লা উৎপাদনে
  3. পরিবহন এবং গৃহস্থালির জ্বালানী হিসাবে
  4. কয়লার বিভিন্ন উপজাত যেমন রাসায়নিক ও সার শিল্পে কাঁচামাল হিসেবে পিচ, স্যাকারিন, বেনজিন, ন্যাপথা, সালফার ইত্যাদি ব্যবহৃত হয়।

কয়লার উৎপত্তি : ভূতাত্ত্বিকদের মতে, প্রায় 30-35 কোটি বছর আগে কার্বনিফেরাস উপযুগে প্রচণ্ড ভূমিকম্পের ফলে পৃথিবীর পৃষ্ঠের এক বিস্তৃত অংশের গাছপালা মাটির নীচে চাপা পড়ে যায়। 

পরবর্তীকালে, ভূ-তাপীয় চাপ, তাপ এবং জৈব রাসায়নিক বিক্রিয়ার ফলে উদ্ভিদের কার্বন সময়ের সাথে সাথে প্রস্তরীভূত হয়ে কয়লায় রূপান্তরিত হয়।

ভারতে প্রধানত দুই যুগের কয়লা পাওয়া যায়। যেমন-

গন্ডোয়ানা যুগের কয়লা: প্রায় 30-35 কোটি বছর আগে, গন্ডোয়ানা যুগে সর্বশ্রেষ্ঠ মানের কয়লা আবিষ্কৃত হয়েছিল। গন্ডোয়ানা যুগের কয়লা মহারাষ্ট্রের ওয়ার্ধা উপত্যকা, দামোদর উপত্যকা, শোন ও মহানদী উপত্যকা, গোদাবরী উপত্যকা প্রভৃতি জায়গায় পাওয়া যায়।

 টার্সিয়ারি যুগের কয়লা: নিম্নমানের কয়লা প্রায় 7-8 কোটি বছর আগে টারশিয়ারি যুগে তৈরী হয়েছিল। ভারতের উত্তর ও উত্তর-পূর্ব পার্বত্য অঞ্চলে টার্সিয়ারি যুগের কয়লা উত্তোলন করা হয়। এছাড়া, লিগনাইট কয়লাক্ষেত্র ভারতের কয়েকটি অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে।

ভারতে কয়লার সঞ্চয়: পূর্ব ও দক্ষিণ ভারত দেশের মোট কয়লা মজুদের 99 শতাংশের মালিক। 2011-12 সালে, ভারতের কয়লা মজুদ ছিল প্রায় 28,586 কোটি টন । 2011-12 সালে, ভারতের লিগনাইট কয়লার মজুদ ছিল প্রায় 4,196 কোটি টন। (সূত্র: Ministry of Statistics and Programme Implementation,2013)

কয়লা বাণিজ্য: ভারত অন্যান্য দেশে খুব কম কয়লা রপ্তানি করে। ভারত 2011-12 সালে 18.52 লক্ষ টন (আনুমানিক) কয়লা রপ্তানি করেছিল। দেশের মোট রপ্তানি যোগ্য কয়লার সিংহভাগই পায় বাংলাদেশ। তা ছাড়া ভারত শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, মায়ানমার প্রভৃতি দেশেও কয়লা রপ্তানি করে।

ক্রমবর্ধমান অভ্যন্তরীণ চাহিদার কারণে, ভারত প্রতি বছর বিদেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে কয়লা আমদানি করে। 2011-12 সালে, ভারত প্রধানত অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে প্রায় 989.29 লক্ষ টন কয়লা আমদানি করেছিল । (সূত্র: Provisional coal Statistics 2011-12,Ministry coal)

Drilling Into the Basics of Crude Oil | Department of Energy

খনিজ তেল:

ভূগর্ভস্থ পাললিক শিলা স্তর থেকে নিষ্কাশিত তেলকে খনিজ তেল বা পেট্রোলিয়াম বলে। খনিজ তেল এবং পেট্রোলিয়াম শব্দটি ল্যাটিন শব্দ “পেট্রা” (অর্থাৎ শিলা) এবং “ওলিয়াম” ( অর্থাৎ তেল) থেকে উদ্ভূত হয়েছে। ফলস্বরূপ, এটি শিলা তেল নামে পরিচিত।

খনিজ তেলের ব্যবহার এবং গুরুত্ব: আধুনিক সময়ে, খনিজ তেলের ব্যবহারের সুযোগ এতটাই বিস্তৃত এবং বৈচিত্র্যময় যে একে “তরল সোনা” বলা হয়। 

  • বিভিন্ন ধরনের পরিবহনে জ্বালানি হিসেবে খনিজ তেলের সর্বাধিক প্রচলিত প্রয়োগ
  • বিদ্যুৎ তৈরিতে
  • যন্ত্রপাতি পরিচালনার জন্য তৈলাক্ত তেলের আকারে
  • খনিজ তেলের উপজাত দ্রব্যগুলো গুরু রাসায়নিক শিল্পে কাঁচামাল হিসাবে
  • সামরিক চাহিদাগুলিতে
  • ঘরে আলো জ্বালানো প্রভৃতি কাজে খনিজ তেল ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

খনিজ তেলের উপজাত দ্রব্য : অপরিশোধিত খনিজ তেল পরিশোধন করে পেট্রোল, ডিজেল, কেরোসিন ইত্যাদি নিষ্কাশন করার পরে, অবশিষ্ট অংশ থেকে ন্যাপথা, অ্যাসফাল্ট, পিচ, প্যারাফিন, আলকাতরা, বেঞ্জল ​​ইত্যাদি উপজাত দ্রব্য প্রস্তুত হয়ে থাকে । পেট্রোকেমিক্যাল শিল্পে, ন্যাপথা একটি গুরুত্বপূর্ণ কাঁচা উপাদান।

খনিজ তেলের উৎপত্তি : ভূতাত্ত্বিকদের মতে, 7-8 কোটি বছর আগে টার্শিয়ারি সময়কালে সমুদ্রের তলদেশের মাইক্রোস্কোপিক অণুজীবগুলো সামুদ্রিক উদ্ভিদ এবং প্রাণীদেহসমূহ ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা বিয়োজিত হয়ে ঊর্ধ্বমুখী চাপ এবং ভূপৃষ্ঠের তাপে রাসায়নিক বিক্রিয়ায় হাইড্রোজেন-কার্বন ঘটিত যৌগ উৎপন্ন করে। এই হাইড্রোকার্বন হল পেট্রোলিয়াম বা খনিজ তেল নামে পরিচিত।

ভারতে খনিজ তেলের আঞ্চলিক বন্টন : 

  • পশ্চিম উপকূল নদীর তেলক্ষেত্র: ভারতের পশ্চিমে আরব সাগরের উপকূলে অবস্থিত, এই তেলক্ষেত্রটি ভারতের বৃহত্তম খনিজ তেল ক্ষেত্র। এই অঞ্চলের চারটি প্রধান তেলক্ষেত্র নিম্নরূপ:
    • মুম্বাই হাই অঞ্চল: এই তেলক্ষেত্র, যা 2000 বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে রয়েছে এবং আরব সাগরের উপকূলে মহারাষ্ট্রের মুম্বাই থেকে 100-150 কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত, এটি ভারতের মোট খনিজ তেল উৎপাদনের 60% এরও বেশি সরবরাহ করে। উল্লেখযোগ্য তেলের খনিগুলির মধ্যে রয়েছে হীরা, পান্না, রত্না, নিলম প্রভৃতি । ‘সাগর সম্রাট’ এবং ‘সাগর বিকাশ’ নামে পরিচিত দুটি ভাসমান তেল কূপ খনন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে এখানে তেল উত্তোলন করা হয়।
    • আলিয়াবেত অঞ্চল: খাম্বাত উপসাগরের আলিয়াবেত এলাকা, 
    • বেসিন অঞ্চল: মুম্বাইয়ের উত্তরে বেসিন এলাকা এবং 
    • সৌরাষ্ট্র ও গোয়ার উপকূলীয় এলাকা থেকে খনিজ তেল উত্তোলন করা হয়।

গুজরাট এবং রাজস্থান তেলক্ষেত্র: 

  • আঙ্কলেশ্বর অঞ্চলের আঙ্কলেশ্বর এবং কোসাম্বা
  • কাম্বে অঞ্চলের লুনেজ, ঢোলকা, বাকাল, মহেসানা
  • আমেদাবাদ অঞ্চলের কালোল, সানন্দা, নওগ্রাম, ওয়াভেল অঞ্চল থেকে তেল পাওয়া যায়।
  •  রাজস্থানের বারম অববাহিকায় মঙ্গলা তেলক্ষেত্রের মঙ্গলা, ভাগ্যম, ঐশ্বর্য প্রভৃতি খনি থেকে প্রতিদিন 25,000 ব্যারেল তেল উৎপাদিত হয় (সূত্র: কেয়ার্ন এনার্জি ইন্ডিয়া)।

উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের তেল ক্ষেত্র: 

  • আসামের উপরের ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় অবস্থিত ডিগবয়, নাহারকাটিয়া, মোরান, রুদ্রসাগর, শিবসাগর, লাকোয়া, গেলেকি, হুগরিজান, বদরপুর প্রভৃতি শহর 
  • অরুণাচল প্রদেশের নিংগরু এবং খারসাং অঞ্চলের তেলের খনি থেকে খনিজ তেল উত্তোলিত হয়।

করমন্ডল উপকূলের তেলক্ষেত্র: তামিলনাড়ুর কাবেরি নদী অববাহিকায় ভুবনগিরি, নরিমানম; অন্ধ্রপ্রদেশের রাজোল; কেয়া-গোদাবরী অববাহিকার কে.জি. বেসিন থেকে তেল উত্তোলিত হয় 

ভারতের খনিজ তেল শোধনাগার: ভারতে এখন 21 টি বড় তেল শোধনাগার রয়েছে যা অপরিশোধিত তেল প্রক্রিয়াকরণে ব্যবহৃত হয়। এর মধ্যে গুজরাটের কয়ালি এবং জামনগর (ভারতের বৃহত্তম তেল শোধনাগার); আসামের ডিগবয়, নুনমাটি, বাঙ্গইগাঁও এবং বিহারের বারাউনি; পশ্চিমবঙ্গের হলদিয়া, অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনম, উত্তরপ্রদেশের মথুরা এবং কর্ণাটকের ম্যাঙ্গালোর প্রভৃতি হল উল্লেখযোগ্য ।

ভারতে খনিজ তেলের সঞ্চয়: 2013 সালের হিসাবে, ভারতে 7595.9 লক্ষ মেট্রিক টন খনিজ তেলের মজুদ ছিল। এর মধ্যে উপকূলে 3964.1 লক্ষ মেট্রিক টন, আসামে 1780.7 লক্ষ মেট্রিক টন এবং গুজরাটে 1367.3 লক্ষ মেট্রিক টন তেল মজুদ রয়েছে।( সূত্র:Ministry of Petroleum and Natural Gas)

খনিজ তেলের বাণিজ্য: উচ্চ স্থানীয় চাহিদার কারণে, ভারতকে প্রতি বছর সৌদি আরব, ইরান, কুয়েত এবং অন্যান্য দেশ থেকে যথেষ্ট পরিমাণে অপরিশোধিত তেল আমদানি করতে হবে। 2012-13 সালে ভারত 18.48 কোটি মেট্রিক টন অপরিশোধিত তেল এবং 1.58কোটি মেট্রিক টন পেট্রোপণ্য আমদানি করে I 2012-13 সালে ভারত কোনো অপরিশোধিত তেল রপ্তানি না করলেও, 6.34 কোটি মেট্রিক টন পেট্রোলিয়াম পণ্য রপ্তানি করে প্রায় 3.20 লাখ কোটি টাকা বৈদেশিক অর্থ আয় করেছে। (সূত্র:MOP AND NG)

ভারতের শক্তি সম্পদ কি হয় ?

শক্তি সম্পদ :

কোনো কাজ সম্পন্ন করার ক্ষমতাকে শক্তি বলে। প্রকৃতির সমস্ত অজৈব সম্পদ যা তাপ শক্তি উৎপন্ন করে তাকে শক্তি সম্পদ বলা হয়।

  • শক্তি সম্পদের প্রকারভেদ: তাপ শক্তি উৎপাদনের উৎস হিসেবে অজৈব সম্পদের ব্যবহারে বৈচিত্র্যের ভিত্তিতে শক্তিকে দুটি প্রধান ভাগে ভাগ করা যায়, – প্রচলিত শক্তি ও অপ্রচলিত শক্তি
  • প্রচলিত শক্তি: 
  • দীর্ঘকাল ধরে, যে সকল উৎস গুলি শক্তি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে, তাদের প্রচলিত শক্তি বা চিরাচরিত শক্তি বলে। কয়লা, খনিজ তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস, পারমাণবিক শক্তি প্রভৃতি হল প্রচলিত শক্তির উৎস। 
  • প্রচলিত শক্তির উৎস: বিশ্বের প্রধান প্রচলিত শক্তির উৎস হল- তাপশক্তি, জলবিদ্যুৎ শক্তি এবং পারমাণবিক শক্তি।
  • তাপশক্তি : জীবাশ্ম জ্বালানি (কয়লা, খনিজ তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস) পোড়ানোর ফলে উৎপন্ন তাপ শক্তিকে বিদ্যুতে রূপান্তরিত করে সৃষ্ট বৈদ্যুতিক শক্তিকে তাপবিদ্যুৎ শক্তি বলে।
  • তাপবিদ্যুৎ শক্তির গুরুত্ব এবং প্রয়োগ: তাপবিদ্যুৎ শক্তি আজ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এই শক্তি ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাট আলোকিত করতে, কলকারখানার যন্ত্রপাতি চালাতে, পরিবহন মাধ্যম চালাতে, বিভিন্ন ইলেকট্রনিক যন্ত্র চালাতে ব্যবহার করা হয় বলে বর্তমান যুগকে “বিদ্যুৎ যুগ” বলা হয়।
  • জলবিদ্যুৎ: স্রোতমান প্রবাহিত জলের গতিতে (নদী, ঝর্ণা, জলপ্রপাত ইত্যাদি) একটি টারবাইনের চাকা ঘুরিয়ে ডায়নামোর দ্বারা উৎপন্ন শক্তি হল জলবিদ্যুৎ শক্তি ।

জলবিদ্যুৎ শক্তির গুরুত্ব এবং প্রয়োগ: 

  • অ্যালুমিনিয়াম, তামা,কাগজ, রাসায়নিক প্রভৃতি শিল্পে জলবিদ্যুতের ব্যবহৃত হয় সর্বাধিক
  • কৃষিতে, গভীর নলকূপের মাধ্যমে সেচের জল সরবরাহ এবং ফসল ও শাকসবজি সংরক্ষণ
  • বাসস্থান এবং রাস্তাগুলি আলোকিত করা
  • রেল পরিবহনে জলবিদ্যুতের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য

পারমাণবিক শক্তি : পারমাণবিক চুল্লিতে ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম ইত্যাদির পরমাণুর বিভাজনের মাধ্যমে যে তাপশক্তি উৎপন্ন হয়, তার সাহায্যে জলকে বাষ্পীভূত করে সেই বাষ্পশক্তির সাহায্যে টারবাইন ঘুরিয়ে জেনারেটরের মাধ্যমে পারমাণবিক বিদ্যুৎশক্তি সৃষ্ট হয় ।

পারমাণবিক শক্তির গুরুত্ব এবং প্রয়োগ : 

  • বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যয় বেশি
  • অ্যালুমিনিয়াম এবং তামা উত্তোলনে
  • শিল্পে ব্যবহারের জন্য
  • বাড়ি এবং রাস্তা আলোকিত করার জন্য
  • সাবমেরিন এবং যুদ্ধজাহাজ পরিচালনার জন্য পারমাণবিক শক্তির ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ।

প্রচলিত শক্তির সুবিধা :

  • ব্যাপকভাবে উপলব্ধ প্রযুক্তি রয়েছে যা প্রচলিত শক্তির উৎসগুলোর ব্যবহারের অনুমতি দেয়।
  • প্রচলিত শক্তির কেন্দ্র গুলি যেখানে প্রয়োজন সেখানে তৈরি করা যেতে পারে।
  • প্রয়োজনে অন্যান্য দেশ থেকে প্রচলিত শক্তির উৎস সম্পদ আমদানি করেও এই শক্তি তৈরি করা যেতে পারে।

প্রচলিত শক্তির অসুবিধা :

  • প্রচলিত শক্তির উৎসগুলি ক্ষয়প্রাপ্ত বা সীমিত। এগুলি অত্যধিক ব্যবহারে শেষ হয়ে যেতে পারে।
  • এই শক্তির উৎসের ব্যবহার পরিবেশকে দূষিত করে।
  • এই শক্তি উৎপাদনের খরচ বেশি।
  • এই শক্তি উৎপাদনের খরচ, নিষ্কাশন এবং ট্রান্সমিশনের খরচের সাথে তাল মিলিয়ে বৃদ্ধি পায়।

অপ্রচলিত শক্তি: 

শক্তি উৎপাদনের যে সকল উৎস সাধারণত ব্যবহৃত হয় না বা সম্প্রতি ব্যবহার করা শুরু হয়েছে, তাদের বলে অচিরাচরিত বা অপ্রচলিত শক্তি। অপ্রচলিত শক্তির উৎস যেমন- সৌরশক্তি, বায়ুশক্তি, ভূ-তাপীয় শক্তি ইত্যাদি।

Major Breakthrough in Solar Panel Efficiency - The Renewable Energy Institute

অপ্রচলিত শক্তির উৎস : সৌরশক্তি, বায়ুশক্তি এবং ভূ-তাপীয় শক্তি হল পৃথিবীতে অপ্রচলিত শক্তির প্রাথমিক উৎস।

সৌরশক্তি : সূর্য পৃথিবীর সকল প্রকার শক্তির প্রাথমিক উৎস। সৌরশক্তি হল সূর্যালোক দ্বারা নির্গত আলো এবং তাপ শক্তি। ফোটোভোল্টায়িক সেল বা সিলিকন সোলার সেল ব্যবহার করে সৌর শক্তিকে বৈদ্যুতিক শক্তিতে পরিণত করা হলে সৌর বিদ্যুৎশক্তি তৈরি হয়।

সৌর শক্তির গুরুত্ব এবং প্রয়োগ: 

  • সৌর সেল দ্বারা বা সরাসরি সৌরকোষ থেকে উৎপাদিত বিদ্যুৎ গৃহস্থালির কাজে, রাস্তায় আলো জ্বালাতে এবং ছোট পাম্প চালানোর জন্য ব্যবহৃত হয়
  • রান্না করার জন্য সৌর কুকার ব্যবহার করা
  • ঘর এবং জল গরম করার জন্য সৌর হিটার ব্যবহার করা
  • সৌর ড্রায়ার কৌশল ব্যবহার করে শস্য সঞ্চয় এবং কাঠ শুকানো
  • সৌর পাতন পদ্ধতিতে জল পরিষ্কার করতে সৌরশক্তি ব্যবহৃত হয়।

বায়ুশক্তি : বায়ুচক্রের সাহায্যে টারবাইন ঘুরিয়ে এবং প্রবাহিত বাতাসের গতিকে কাজে লাগিয়ে উৎপাদিত শক্তিকে বায়ুশক্তি বলে। এটি একটি সম্পূর্ণ দূষণমুক্ত এবং পরিবেশবান্ধব শক্তি ।

বায়ুশক্তির গুরুত্ব এবং ব্যবহার : 

  • ফসল পেষাই এবং কূপ থেকে জল সংগ্রহে বায়ু শক্তির ব্যবহার রয়েছে,
  • পোল্ডার ল্যান্ড এলাকার অগভীর সমুদ্র থেকে লবণাক্ত জল অপসারণ করে জমি রক্ষা করা,
  • ভবন, মহাসড়ক এবং কারখানাগুলোকে আলোকিত করার জন্য বায়ুশক্তি ব্যবহার করা হয়৷

ভূ-তাপীয় শক্তি : ভূ-তাপীয় শক্তি হল ভূমির অভ্যন্তরে প্রচন্ড তাপ দ্বারা উৎপন্ন শক্তি। এই শক্তি প্রত্যক্ষ বা এর থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে পরোক্ষভাবে ব্যবহার করা হয় ।

ভূতাপীয় শক্তির গুরুত্ব এবং ব্যবহার : 

  • ভূ-তাপীয় শক্তি শীতপ্রধান দেশগুলিতে বাসস্থানগুলিকে উষ্ণ, বরফমুক্ত জমি, শুকনো ফসল এবং গ্রিনহাউস পদ্ধতিতে চাষ করার জন্য নিযুক্ত করা হয়।
  • ভূ-তাপীয় শক্তি দ্বারা উৎপাদিত বিদ্যুৎ কাগজ শিল্পের পাশাপাশি বাড়ি এবং রাস্তাঘাট আলোকিত করতে ব্যবহৃত হয়।

অপ্রচলিত শক্তির সুবিধা:

  • অপ্রচলিত শক্তির উৎসগুলো অসীম বা প্রবাহিত হওয়ার কারণে নিঃশেষ হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
  • এই শক্তি উৎপাদনে পরিবেশগত দূষণ প্রায় সামান্যই হয়।
  • যদিও এই শক্তি তৈরির প্রাথমিক খরচ যথেষ্ট, পুনরাবৃত্ত খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে কম।

অপ্রচলিত শক্তির অসুবিধা:

  • অপ্রচলিত শক্তির উৎস ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত প্রযুক্তির অভাব রয়েছে।
  • এই শক্তির উৎসগুলো সব জায়গায় সমান ভাবে পাওয়া যায় না।
  • এই শক্তি উৎপাদনের কেন্দ্র গুলির ক্ষমতা সীমিত।

Solved Questions & Answers of ভারতের সম্পদ Bharater Sompod

1 Marks Questions of ভারতের সম্পদ Bharater Sompod

1. পেট্রোলিয়ামের অপর নাম কী?
Ans. হাইড্রোকার্বন।

2. অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশ কী ধরনের সম্পদ?
Ans. আন্তর্জাতিক সম্পদ।

3. গুজরাতের ______ একটি বিখ্যাত বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র গড়ে উঠেছে। (শূন্যস্থান পূরন করো)
Ans. লামডা

4. স্যাকারিন কয়লার একটি ______ দ্রব্য। (শূন্যস্থান পূরন করো)
Ans. উপজাত

5. প্রকৃতি, মানুষ ও ______ সম্পদ সৃষ্টির প্রধান তিনটি উপাদান। (শূন্যস্থান পূরন করো)
Ans. সংস্কৃতি

6. খনিজ তেলে কোন্ উপাদান বেশি পরিমাণে থাকে?
Ans. হাইড্রোকার্বন।

7. দক্ষিণ ভারতের প্রধান লিগনাইট খনির নাম ______। (শূন্যস্থান পূরন করো)
Ans. নেয়ভেলি

8. কয়লাতে কার্বনের পরিমাণ খুব বেশি থাকলে তাকে কী বলে?
Ans. গ্রাফাইট।

9. পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয় এরূপ জ্বালানিকে কী বলে?
Ans. সবুজ জ্বালানি।

10. পেট্রোলিয়ামের অপর নাম কী?
Ans. হাইড্রোকার্বন।


Multiple Choice Questions – 1 Marks of ভারতের সম্পদ Bharater Sompod

1. গবাদিপশুর সংখ্যার বিচারে ভারতের স্থান –
A. প্রথম B. দ্বিতীয় C. তৃতীয় D.চতুর্থ
Ans. A

2. পূর্ব ভারতের একটি গুরুত্বপূর্ণ তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র হল—
A. মাইথন B. হিরাকুঁদ C. ফারাক্কা D. নেপ্লোর
Ans. C

3. শিক্ষা একটি—
A. অবস্তুগত সম্পদ B. বস্তুগত সম্পদ C. মানবিক সম্পদ D.জৈবিক সম্পদ
Ans. A

4. একটি অপ্রচলিত শক্তির উৎস—
A.খরস্রোতা নদী B. সূর্যালোক C. কয়লা D. খনিজ তেল
Ans. B

5. ভারতের ভূতাপ শক্তিকেন্দ্র গড়ে উঠেছে—
A. ভিজিনজামে B. মণিকরণে C. জালখেড়িতে D. চিকমাগালুরে
Ans. B

6. ভারতের প্রথম পারমাণবিক শক্তিকেন্দ্র –
A. ট্রম্বে B. কালপক্কম C. তারাপুর D. শোলাপুর
Ans. C

7. রাজস্থানের একটি পারমাণবিক শক্তিকেন্দ্র হল—
A. ট্রম্বে B. তারাপুর C. কোটা D. রুদ্রসাগর
Ans. C

8. অরণ্য একটি—
A. সাংস্কৃতিক সম্পদ B. প্রাকৃতিক সম্পদ C. মানবিক সম্পদ D. অজৈব সম্পদ
Ans. B

9. সমুদ্রের মাছ—
A. স্থায়ী সম্পদ B. পূরণশীল সম্পদ C. সাংস্কৃতিক সম্পদ D. মানবিক সম্পদ
Ans. B

10. একটি অন্যতম সাংস্কৃতিক সম্পদ হল—
A. শিক্ষা B. জনসংখ্যা C. জল D. মাটি
Ans. A

error: Content is protected !!
Scroll to Top

আজকেই কেনো পরীক্ষার শর্ট নোটস

এখন সহজে পরীক্ষার প্রস্তুতি নাও – আজকেই ডাউনলোড করো পিডিএফ বা বই অর্ডার করো আমাজন বা ফ্লিপকার্ট থেকে